robi_454x55

ঈদের আনন্দ বনাম হৃদয়ে রক্ত ক্ষরণ!

এবারের ঈদে আনন্দ বলতে কিছুই অনুবব করছিনে… আমাদের সকল আনন্দ কেড়ে নিয়েছে, বর্বর ইসরাঈল ইহুদী গোষ্ঠি। তাই শুধুই হৃদয়ে রক্তক্ষরণই হচ্ছে। সিলেট রিপোর্ট ডটকম পরিবারের পক্ষ থেকে মজলুম ফিলিস্তিনীদের প্রতি রইলো সহমর্মিতা.. বিস্তারিত.....»

ঈদ ও ফিলিস্তিনের লাল রক্ত –ইকবাল হাসান জাহিদ

ফিলিস্তিন, তোমার শরীরের সাথে রয়েছে আমার শীরা-উপশীরার সম্পর্ক আত্মার সাথে রয়েছে আমার আত্মার তোমার গায়ে মানবতার লাল রক্ত আমাকে বাঁচাতে তোমার শরীরে বিদ্ধ তাগুতের বিষমিশ্রিত বুলেট আর আমার গায়ে ঈদ উদযাপনের লাল-নীল-বেগুনী বিস্তারিত.....»

ওসমানী নগর ইসলামীক এডুকেশন এন্ড ওয়েল ফেয়ার ট্রাস্ট্র ইউকের ঈদ সামগ্রী বিতরণ ও ইফতার মাহফিল অনুষ্টিত

সিলেট রিপোর্ট : ওসমানী নগর ইসলামীক এডুকেশন এন্ড ওয়েল ফেয়ার ট্রাস্ট্র ইউকের পক্ষ থেকে ৮ টি ইউনিয়নের প্রায় দুইশত  দরিদ্র পরিবারে মধ্যে ঈদ সামগ্রী বিতরণ ও ইফতার মাহফিল অনুষ্টিত হয়েছে । রোববার বিস্তারিত.....»

 

কারাবন্দি জমিয়ত নেতা `মুফতি মুহাম্মদ ওয়াক্কাস’ ওয়ালিউল্লাহি কাফেলার এক বিপ্লবী নাম

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী: বাংলাদেশ কওমী মাদ্রাসা শিক্ষার্বোড বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়ার সহসভাপতি, হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের নায়বে আমির, ইসলামী আইন বাস্তবায়ন কমিটি ও জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের র্দীঘ দিনের মহাসচিব, ১৮ দলীয় জোটের অন্যতম র্শীষ নেতা সাবেক ধর্মপ্রতিমন্ত্রী ও কয়েকবারের নির্বাচিত জননন্দিত সংসদসদস্য মুফতি মুহাম্মদ ওয়াক্কাস বর্তমান সরকারের কারাগারে বন্দি। দেশ বরেণ্য এই আলেমেদ্বীনকে গত ২ সেপ্টেম্বর ২০১৩ আওয়ামীলীগ সরকারের গুয়েন্দাপুলিশ ঢাকা থেকে তাকেঁ গ্রেফতারকরে। এর কিছুদিন আগেও তাকে আটক করেছিল ঢাকা মহানগর গুয়েন্দা পুলিশ। প্রাপ্ত তথ্য মতে, এরির্পোট লেখা পর্যন্ত হেফাজতে ইসলাম এবং ঈমান ও দেশ রক্ষা আন্দোলনের কারণে ২৯ টি মামলার আসামী হয়েছেন। জানাগেছে, বেফাকের বৈঠকে কওমী মাদ্রাসার স্বীকৃতির প্রশ্নে মুফতি ওয়াক্কাসের জোরালো ভুমিকায় ‘দরবারি আলেম’দের সমালোচনা করায় একটি বিশেষ মহলের ইন্দনেই তাকে গ্রেফতার করাহয়েছে। আল্লামা শাহ আহমদ শফীসহ দেশের হক্কানী উলামায়ে কেরামের ভাষ্যকার হিসেবে তিনি ইতিমধ্যে গুরুত্বপুর্নভুমিকা পালন করেছেন। সরকারের কওমী শিক্ষা ব্যবস্থা ধ্বংসের পায়তারার সাথে তিনি ছিলেন আপোষহীন। তাঁর বক্তব্য ছিলো, সরকারের নিয়ন্ত্রনে চলেগেলে কওমী মাদ্রাসা তার স্বকীয়তা হারাবে’। এটাই ছিল তার অপরাধ? বিগত ৩৫ বছরের রাজনৈতিক জীবনে মুফতি ওয়াক্কাস ক্ষমতার লোভে কখনো ঈমান-আক্বিদা পরিপন্থি, দেশ বিরুধী কোন কর্মকান্ডে জড়িত থাকার নজির নেই। দেশ ও ধর্মীয় সার্থসংরক্ষনে তিনি সদাসর্বদা ছিলেন সত্যের সংগ্রামে এক নিবেদিত প্রাণ। ইসলাম বিদ্বেষী নাস্তিক ব্লগার বিরুধী আন্দোলনে মুফতি ওয়াক্কাস কারো ক্রিড়নক ছিলেন না। ৫ মে শাপলা চত্বরে তিনি পরিস্কার ভাষায় বক্তব্য রাখেন। তবে তিনি ৫ মে রাত ব্যাপী অবস্থানের বিপক্ষে ছিলেন। কতিপয় স্বার্থান্বেষী (৩ জন জ্ঞান পাপি)মহলের অপতৎপরতায় গোটা আলেম সমাজকেই চরম খেশারত দিতো হলো! …….
এদেশে রিমান্ডের নামে নির্যাতনের অভিযোগ নতুন কিছু নয়। গত ১৩ সেপ্টেম্বর তাকে দেখার জন্য কাশেমপুরস্থকেন্দ্রীয় কারাগারে গিয়ে জান্তে পারলাম তিনি শারিরীক ও মানষিক ভাবে অসুস্থ্য। ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৩ যশোরে তাঁর প্রতিষ্ঠিত মাদ্রাসায় গিয়ে এক হৃদয় বিদারক দৃশ্য অবলোকন করলাম। দুই শাখায় আবাসিক প্রায় দেড় হাজার ছাত্র-ছাত্রী অভিভাবক শূন্যতায় খুবকষ্টের মধ্যে দিন গুজরান করছে। আমরা মাদ্রাসা মসজিদে ফজরের নামাজ আদায়করলাম। নামাজ শেষে সুরায়ে ইয়াসিন তিলাওয়াত শেষে হাজারো আলেম-ছাত্রদের মোনাজাতে মনে হয়েছিল যেন জালেম শাহীর সিংহাসে কম্পন শুরু হয়েগেছে! এভাবে প্রতিদিনই করুণ মিনতি কন্ঠে মুফতি ওয়াক্কাসের জন্য আল্লাহর নিকট রুনাজারীকরা হচ্ছে। জানিনা জালিম শাহীর বন্দিশালায় কতদিন থাকতে হবে দেশবরেণ্য এই আলেমেদ্বীনকে।
সংক্ষিপ্ত পরিচয়: যশোর জেলা শহর থেকে ১৮ কিঃমিঃ দক্ষিণে মনিরামপুর অবস্থিত। ১৭টি ইউনিয়ন ও ২৫২ টি গ্রাম নিয়ে মনিরামপুর উপজেলা গঠিত। উপজেলার বিজয়রামপুর নামক গ্রামে ১৯৫২ সালের ১৫ই জানুয়ারি মুফতি ওয়াক্কাস সাহেবের জন্ম। পিতা- ইসমাইল, মাতা- নূর জাহান বেগম। আলিয়া থেকে দাখিল, আলিম, ফাযিল এবং কওমী থেকে দাওরায়ে হাদিস পাশ করেন। ১৯৭৬ সালে দেওবন্দ থেকে মুফতি ডিগ্রি লাভ করেন। লাউড়ী আলিয়া থেকে তার কর্ম জীবনের সূচনা, খলিফায়ে মদনী মরহুম তজম্মুল আলী লাউড়ী হুজুর তার প্রিয় মুর্শিদ ও উস্তাদ। তিনি ৩ ছেলে ও ৪ মেয়ের জনক। ১৯৮৮সালে প্রায় ৮ মাস ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৮৬,৮৮,৯১,৯৬ ও ২০০১ সালের নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করেন। তন্মধ্যে ৮৬,৮৮ ও ২০০১ সালে যশোর-৫ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৮৬ সালে নিজএলাকায় জামিয়া ইমদাদিয়া মাদানী নগর মাদ্রাসার প্রতিষ্টাতাকরে প্রিন্সিপাল হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। ছাত্র যমানায়-জমিয়তে তালাবায়ে আরবিয়া বাহাদুর পুর শাখার ভিপি ছিলেন। ২০০১ সালে জাতীয় সংসদের যশোর-৫ আসনে চারদলীয় ঐক্যজোটের মনোনয়নে ইসলামী ঐক্যজোট+জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের প্রার্থী হিসেবে ১১০৮৩৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছিলেন। তার প্রাপ্ত ভোট ছিল এই আসনে প্রদত্ত মোট বৈধ ভোটের ৫২.৪৫ শতাংশ। আওয়ামী লীগের প্রার্থী এবং বর্তমান সংসদ সদস্য খান টিপু সুলতানকে ২১০৫৫ ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করেছিলেন। মুফতী মুহাম্মদ ওয়াক্কাস তিন বারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য। এর আগে তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ১৯৮৬ সালের তৃতীয় এবং জাতীয় পার্টির প্রার্থী হিসেবে ১৯৮১ সালের চতুর্থ সংসদে নির্বাচিত হয়েছিলেন। মুফতী মুহাম্মদ ওয়াক্কাস রাজনীতি শুরুকরেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম-এর মাধ্যমে। এখনো জড়িত রয়েছেন এই সংগঠনের সঙ্গেই। ১৯৮৮ সালে তিনি এরশাদ সরকারের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। চতুর্থ সংসদে তিনি জাতীয় পার্টির হুইপের দায়িত্বও পালন করেন। ১৯৭৬ থেকে ১৯৮৬ সাল পর্যন্ত তিনি জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের কেন্দ্রীয় সহকারী সাধারণ সম্পাদক, খুলনা মহানগরীর আমীর এবং ১৯৯১ থেকে এখন পর্যন্ত এই সংগঠনের মহাসচিবের দায়িত্ব পালন করছেন। ভারতের উত্তরপ্রদেশের দেওবন্দ মাদ্রাসা থেকে তিনি দাওরায়ে হাদীস প্রথম শ্রেণীতে চতুর্থ, তাফসীরে দীনিয়াত ও ফতোয়া বিভাগের উভয় পরীক্ষায় প্রথম শ্রেণীতে প্রথম স্থান অর্জন করেন। মুফতী মুহাম্মদ ওয়াক্কাস ‘শরীয়তের আলোকে মুসলিম পারিবারিক আইন’ এবং ‘ইসলামী আইন বনাম প্রচলিত আইনঃ একটি পর্যালোচনা’ শীর্ষক দুটি গ্রন্থ রচনা করেছেন। তিনি ভ্রমণ করেছেন সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, ইরাক, পাকিস্তান ও ভারত। দেশবরেণ্য এই আলেমের মুক্তির দাবীতে দেশ-বিদেশে মিছিল-সমাবেশ হচ্ছে। যে সব মামলায় মুফতি ওয়াক্কাসকে আসামী করা হয়েছে, তা সত্যিই হাস্যকর,অযুক্তিক,সম্পুর্ন মিথ্যা ও উদ্দেশ্য প্রনোদিত। দেশ বরেণ্য এই আলেম কোন মানুষহত্যা,লুটপাট,অগ্নিসংযোগ করতে পারেননা। তাই আমরা সহজ সরল বরেন্য এই আলেমের অবিলম্বে নি:শর্ত মুক্তির দাবী জানাচ্ছি। পরিশেষে আমরা অসুস্থ এই আলেমেদ্বীনের সুস্থ্যতা ও দীর্ঘায়ু কামনা করছি।

লেখক: সভাপতি- মাদানী কাফেলা বাংলাদেশ। ০১৭১৬৪৬৮৮০০।

তারিখ ৯.১০.১৩

Share Button